মেসির বিশ্রাম বলে কিছু নেই , ক্রীড়া ডেস্ক, নতুন খবর

স্বাভাবিকভাবেই দলের সেরা খেলোয়াড়দের ওপর চাপ একটু বেশি থাকে। আর লিওনেল মেসি অনেক দিন ধরেই সেই বাড়তি চাপ নিয়েই নিজেকে উজাড় করে দিচ্ছেন। নিজের ফর্ম এবং দলকে নিয়মিত জয় এনে দেওয়ার চ্যালেঞ্জ তো আছেই, কখনো কখনো চোটাঘাতের শঙ্কাকেও পাশ কাটিয়ে দলের প্রয়োজনের সময় মাঠে নামতে হয়। যেমন ঊরুর সমস্যা নিয়েও প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই বার্সেলোনার হয়ে মাঠে নামতে হচ্ছে মেসিকে।

চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই বার্সেলোনার দায়িত্ব যেন পুরোটাই মেসির কাঁধে। দলের প্রয়োজনে নিজের সবটুকুই দিয়ে আসছেন ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই। তবে চলতি ২০১৯-২০২০ মৌসুমে মেসির ওপর দায়িত্বটা যেন একটু বেশিই। তাই তো বার্সেলোনার হয়ে শেষ ১৬টি লিগ ম্যাচে টানা খেলেছেন ছয়বারের ফিফা বর্ষসেরা এ ফুটবলার।

মেসির এমন টানা খেলে যাওয়ার একটা কারণও রয়েছে; কাতালানদের মূল দলে বর্তমানে মোট ১৪ জন খেলোয়াড় ফিট রয়েছেন। আর স্ট্রাইকারদের মাঝে মেসির সঙ্গে ফিট শুধু গ্রিজম্যান এবং একাডেমির ১৭ বছর বয়সী আনসু ফাতি। স্ট্রাইকার লুইজ সুয়ারেজকে মে পর্যন্ত মাঠে ফেরত পাচ্ছেন না কিকে সেতিয়েন আর হ্যামস্ট্রিংয়ে চোটের কারণে এই মৌসুমে দলের বাইরে উসমান দেম্বেলে।

তাই চোটের শঙ্কা থাকার পরও মেসিকে নিয়মিত খেলাচ্ছেন বার্সা বস সেতিয়েন। তবে মেসি কিন্তু থেমে নেই। ঊরুর সমস্যা নিয়েও নিজের সহজাত খেলাটাই খেলে যাচ্ছেন। লা লিগায় এখন পর্যন্ত ১৪ গোল দিয়ে মেসি সবার ওপরে। একইভাবে গোল বানিয়ে দেওয়ার দিক দিয়েও তিনিই সবচেয়ে এগিয়ে।

এরইমধ্যে কোপা দেল রে হাতছাড়া করেছে বার্সা; এখন কেবল লা লিগা আর উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের জন্যই লড়বে বার্সেলোনা। তবে এই দুই শিরোপার জন্য লড়তে মৌসুমের শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যেতে হবে তাদের। তাই তো আক্রমণ ভাগের সেনাপতি মেসিকে বাকি সময়ের পুরোটা জুড়েই তাকে লাগবে বার্সার।

গেল বছরের ৬ অক্টোবর সেভিয়ার বিপক্ষের ম্যাচের পর থেকে মেসি লা লিগায় টানা ১৬টি ম্যাচ খেলেছেন এবং যার মধ্যে ১৪৩৯ মিনিট মাঠেই ছিলেন তিনি। চ্যাম্পিয়নস লিগে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে বদলি হিসেবে নামার পর থেকে এখন পর্যন্ত দুটি বাদে সবকটি ম্যাচেই মাঠে নেমেছেন মেসি। সব মিলিয়ে এই মৌসুমে মেসি খেলেছেন ২১৯০ মিনিট। অর্থাৎ মৌসুম জুড়ে এমনই ব্যস্ত থাকতে হবে মেসিকে!

চোট নিয়ে দলের সেরা খেলোয়াড়কে মাঠে নামাতে থাকলে কী হয়, সেটা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ছোট চোট থেকে এখন অন্তত তিন মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে গেছেন রাশফোর্ড। বার্সাও নিশ্চয়ই চাইবে না মেসির ক্ষেত্রেও সেরকম কিছু হোক।

উল্লেখ্য, ঘরের মাঠে চলতি মৌসুমে এখনো হারেনি কাতালানরা। শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ঘরের মাঠে গেতাফের বিপক্ষে লড়াইয়ে নামবে সিতিয়েনের দল; চাইলে এই ম্যাচে বিশ্রামে রাখা যেতে পারত মেসিকে। কেননা ঘরের মাঠে জয়ের রেকর্ড তাদের ভালো। তবুও ম্যাচ নিয়ে কোনো রিস্ক নিতে চান না কোচ। ফলে আজও ৯০ মিনিট খেলা হচ্ছে মেসির!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *