ববিতা অভিমান ভুলে ফিরছেন: বিনোদন প্রতিবেদক, নতুন খবর |

বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের তুমুল জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা ফরিদা আক্তার ববিতা। তিনি ভাবী এবং মায়ের চরিত্রেও দারুণ সফল। অসংখ্য ছবিতে কৃতিত্বের সঙ্গে অভিনয় করে জিতেছেন আটটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। তার মধ্যে একটি আজীবন সম্মাননা। এছাড়া ছয়টি বাচসাস পুরস্কারসহ ববিতার ঝুলিতে রয়েছে উল্লেখযোগ্য হারে ছোট-বড় সম্মাননা। তার প্রাপ্ত মোট পুরস্কারের সংখ্যা দুই ডজনেরও বেশি।

এমন একজন গুণি অভিনেত্রী কি না দীর্ঘদিন ধরে চলচ্চিত্রের বাইরে। কিন্তু কেন? ববিতা সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে জানান, বিশেষ একটা অভিমান থেকেই থেকেই তিনি অভিনয় থেকে দূরে। তবে কী সেই অভিমান, সেটা অবশ্য খোলসা করেননি সত্তর ও আশির দশকের সুপারহিট এই নায়িকা।

তবে একটি সুসংবাদ দিয়েছেন ভক্তদের জন্য। ববিতা জানিয়েছেন, শিগগিরই তিনি অভিনয়ে ফিরতে চলেছেন। অভিনেত্রীর কথায়, ‘লিখিত কোনো চুক্তি এখনো কারও সঙ্গে হয়নি। কয়েকজন নির্মাতার সঙ্গে ইতোমধ্যে কথা হয়েছে। তার মধ্যে চারটি ছবির গল্প ভালো লেগেছে। সেই গল্পগুলো পড়ে মনে হয়েছে, অনেকদিন তো ঘরে বসে থাকলাম, এবার নিজের জগতে ফেরা যাক।’

ববিতা বলেন, ‘যা নিয়েই অভিমান করি না কেন, অভিনয়ে আবার ফিরব- এমনটাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কারণ, আমি বিশ্বাস করি, শিল্পীর বিদায় বলে কিছু নেই। তাছাড়া অভিনয় জগৎ থেকে বিদায় নেয়ার ঘোষণাও দিইনি। যার রক্তে অভিনয় মিশে গেছে, সে কি কখনো তা থেকে দূরে থাকতে পারে, পারে না। আমার পক্ষেও এটা সম্ভব নয়।’

তাহলে কবে নাগাদ শুটিংয়ে ফিরবেন অভিনেত্রী? ববিতা জানান, যেহেতু কোনো ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হইনি, তাই এখনই ঘরের বাইরে বেরোনোর ইচ্ছা নেই। করোনায় প্রিয় কিছু মানুষকে হারিয়েছি। এ জন্য কাছের মানুষজন এখনই কাজে ফিরতে নিষেধ করছেন। আর কিছুদিন যাক, তারপর শুটিং নিয়ে ভাবব। শুটিং যেহেতু শুরু হয়েছে তখন ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে বেশি দিন অপেক্ষায় থাকতে হবে বলে মনে হয় না।’

এদিকে, সম্প্রতি উইকিপিডিয়ায় সাতটি ভাষায় তুলে ধরা হয়েছে ববিতার ব্যক্তি ও শিল্পী জীবনের নানা অধ্যায়। এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী বলেন, ‘সাত ভাষাভাষীর মানুষ আমার সম্পর্কে জানতে পারবেন, ভাবতেই ভীষণ আনন্দ হচ্ছে। মনে হচ্ছে, এক জীবনে যা কিছু করেছি তার প্রতিফলন এটি। অভিনয় করে অনেক পুরস্কার পেয়েছি, সেটা যেমন ভালো লাগার, তেমনি উইকিপিডিয়ার এ উদ্যোগও আনন্দের।’

নতুন খবর//তুম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *