পরবর্তী সিদ্ধান্ত ইরফানের মামলার প্রতিবেদন দেখে : র‌্যাব, নিজস্ব প্রতিবেদক, নতুন খবর |

 

 

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেছেন, র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে পুলিশের করা দুটি মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা যে প্রতিবেদন দিয়েছেন সে বিষয়ে আমরা অবহিত নই। উনি (তদন্ত কর্মকর্তা) উনার বাস্তবতা ও অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করে যা পেয়েছেন তার ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। চূড়ান্ত প্রতিবেদনে কী আছে সেটা আমরা হাতে পেলে এ বিষয়ে পরবর্তীতে জানাতে পারব।

মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ‘র‍্যাব সেবা সপ্তাহ’ রক্তদান কর্মসূচি উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

গত ২৫ অক্টোবর রাতে রাজধানীর ধানমন্ডিতে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লে. ওয়াসিম খানকে মারধর করেন সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের গাড়িতে থাকা লোকজন। এই ঘটনার একদিন পর হাজী সেলিমের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় মাদক, অস্ত্র ও ওয়াকিটকিসহ সেলিমপুত্র ইরফানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এই ঘটনায় দুটি মামলা করে র‌্যাব। সেই দুটি মামলায় সোমবার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ। এতে ইরফান সেলিমকে দায়মুক্তি দেয়া হয়েছে।

আশিক বিল্লাহ বলেন, ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে আমরা অভিযান পরিচালনা করি। হাজী সেলিমের বাড়িতে অভিযানে যেসব মালামাল পাওয়া যায় বিশেষ করে ওয়াকিটকি ও মাদক সেবনের ঘটনায় র‌্যাবে ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বসিয়ে আসামিদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন। বাকি অবৈধ জিনিস লিপিবদ্ধ করে আমরা থানায় মামলা করেছিলাম। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা যে প্রতিবেদন দিয়েছেন সে বিষয়ে আমরা অবহিত নই। উনি উনার বাস্তবতা ও অভিজ্ঞতা ওপর নির্ভর করে যা পেয়েছেন তার ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। চূড়ান্ত প্রতিবেদনে কী আছে সেটা আমরা পেলে এ বিষয়ে পরবর্তীতে জানাতে পারব।

পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদন ইফরান সেলমিকে দায়মুক্তি দেয়ায় র‍্যাবের অভিযান প্রশ্নবৃদ্ধ হয় কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, র‍্যাব যে অভিযানটি পরিচালনা করেছিল সে সময় ম্যাজিস্ট্রেটে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া অভিযানে যেসব আলামত পাওয়া গিয়েছিল তার ভিত্তিতে মামলাগুলো করা হয়েছে। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা যেসব বিষয় বিবেচনা করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন এ বিষয়ে র‍্যাব অবহিত নয়।

এ তদন্ত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাব নারাজি দেবে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুলিশের চূড়ান্ত প্রতিবেদন আমাদের হাতের আসার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।

জনগণ পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদন নাকি র‍্যাবের অভিযানকে বিশ্বাস করবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, র‍্যাব বাংলাদেশ পুলিশেরই একটি বিশেষায়িত বাহিনী। অর্থাৎ বাংলাদেশ পুলিশের যেসব শাখা আছে তার মধ্যে র‍্যাব অন্যতম। এ রকম একটি বাস্তবতায় আমরা অভিযানে যেসব আলামত ও মালামাল পেয়েছি সেগুলো সুনির্দিষ্টভাবে লিপিবদ্ধ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এছাড়া র‍্যাব যেসব অভিযান চালায় সেখানে সাক্ষীদের উপস্থিতিতে যে আলামত পাওয়া যায়, তা কর্মকর্তারা এজাহারে উল্লেখ করেন। যে সময় ঘটনা ঘটে তার বাস্তবতার ওপর ভিত্তি করে মামলা করা হয়। সুতরাং র‍্যাবের সব কার্যক্রম একধরনের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মধ্য দিয়ে পরিচালিত হয়। এ বাস্তবতায় র‍্যাব নিরপেক্ষ ও চাপমুক্তভাবে অভিযান চালায়।

পুলিশের তদন্ত প্রশ্নবিদ্ধ কি-না জিজ্ঞাসা করলে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, পুলিশের তদন্তের বিষয়ে তারাই স্পষ্ট ধারণা দিতে পারবেন।

নতুন খবর//তুম