দৈনিক ৫ হাজার মৃত্যু হবে ভারতে আগামী মাস থেকে : গবেষণা ,আন্তর্জাতিক ডেস্ক, রাইয়ান |

 

ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ আরও ভয়াবহ হতে চলেছে । আগামী ১৫ দিনের মধ্যে দেশটিতে দৈনিক কোভিডে মৃত্যুর সংখ্যার ৫ হাজার পার হবে। ফলে ১২ এপ্রিল থেকে ১ আগস্টের মধ্যে দেশে কোভিডে মৃত্যু হতে পারে আরও প্রায় ৩ লক্ষ ৩০ হাজার মানুষের।

আমেরিকার ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিক্স অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন (আইএইচএমই)’-এর সাম্প্রতিক গবেষণায় এই ফলাফল পাওয়া গেছে। প্রায় একই রকমের ইঙ্গিত মিলেছে মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়েরও একটি গবেষণায়। দ্বিতীয় এই গবেষণায় বলা হয়েছে, মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে ভারতে দৈনিক কোভিড-মৃতের সংখ্যা বেড়ে হতে পারে সাড়ে ৪ হাজার। আর জুলাইয়ের শেষে সংক্রমণ বাড়বে আরও ৮ থেকে ১০ লক্ষ।

গত এক সপ্তাহ ধরে ভারতে প্রতিদিন সংক্রমিত হচ্ছে ২ লাখের বেশি আর মৃত্যু হচ্ছে দুই হাজারের বেশি মানুষের। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও দুই হাজার ৬২৪ জন। এটিই এখন পর্যন্ত দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। করোনায় এ পর্যন্ত ভারতে মারা গেছেন এক লাখ ৮৯ হাজার ৫৪৪ জন। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে তিন লাখ ৪৬ হাজার ৭৮৬ জন। এটিই এখন এখন পর্যন্ত দেশটিতে ও বিশ্বে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। ভারতে মোট এক কোটি ৬৬ লাখ ১০ হাজার ৪৮১ জন শনাক্ত হয়েছেন। সংক্রমণের দিক থেকে বিশ্বের মধ্যে ভারতের অবস্থান বর্তমানে দ্বিতীয়তে।

কলকাতার বিশেষজ্ঞরা অবশ্য এই দুটি দাবির সঙ্গে পুরোপুরি একমত হননি। তাদের বক্তব্য, মানুষ বাইরে বের হলে মাস্ক পরবেন না, সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলবেন না, বাইরে থেকে ঘরে ঢুকে স্যানিটাইজ করবে না, কোভিড টিকা দেয়া হবে না এমন কয়েকটি পূর্ব ধারণার (‘অ্যাসাম্পশন’) ভিত্তিতে এই পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। অথচ গত এক সপ্তাহে পরিস্থিতি কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। মানুষ মাস্ক পরে রাস্তায় বের হচ্ছেন। ভ্যাকসিন কার্যক্রম চলছে। ফলে এই দু’টি পূর্বাভাস মেলার সম্ভাবনা কম। তবে পরিস্থিতিতে সঙ্কটজনক, সেটা তারা স্বীকার করেছেন।

ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইএইচএমই-এর গবেষণায় বলা হয়েছে, ১২ এপ্রিল থেকে ১ অগস্ট পর্যন্ত ভারতে কোভিড সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গ আরও ভয়াবহ হয়ে উঠতে চলেছে। তার ফলে মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহেই দেশে দৈনিক কোভিড মৃত্যুর সংখ্যা সাড়ে ৫ হাজারেরও বেশি হবে। ভয়ঙ্কর ভাবে বেড়ে যাবে সংক্রমণের হারও। তার ফলে ১২ এপ্রিল থেকে ১ অগস্টের মধ্যে ভারতে কোভিডে মৃতের সংখ্যা আরও প্রায় ৩ লক্ষ ৩০ হাজার বাড়বে। যার পরিণতিতে জুলাইয়ের শেষাশেষি দেশে কোভিড-মৃতের সংখ্যা হবে ৬ লক্ষ ৬৫ হাজারের কিছু বেশি।

তবে মানুষ যদি মাস্ক পরার ব্যাপারে চোখে পড়ার মতো আগ্রহী হয়ে ওঠেন, টিকাকরণের প্রক্রিয়া যদি স্বাভাবিক থাকে, তা হলে কোভিড-মৃতের সংখ্যা পূর্বাভাসের চেয়ে ৭০ হাজার কমে যেতে পারে বলেও ওয়াশিটংন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা জানিয়েছে। একই সঙ্গে ভারতে টিকাকরণের গতিতে আশাপ্রকাশ করেছে এই গবেষণা।

গবেষণায় বলা হয়েছে, মাস্ক না পরা, সামাজিক দূরত্ববিধি না মেনে চলার খেসারত গুনতে গিয়ে এপ্রিলের প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহে সারা দেশে নতুন সংক্রমণের ঘটনা বেড়েছে ৭১ শতাংশ। আর দৈনিক কোভিড-মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে ৫৫ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে কলকাতার জিন বিশেষজ্ঞ কেন্দ্রীয় সরকারের ‘ন্যাশনাল সায়েন্স চেয়ার’ পার্থপ্রতিম মজুমদার বলেন, গত এক সপ্তাহে মানুষের সচেতনতা বেড়েছে। মানুষ নিজে থেকেই মাস্ক পরতে শুরু করেছে। সামাজিক দূরত্ববিধিও মেনে চলার চেষ্টা করছেন। সরকারও স্বাভাবিক ভাবেই নতুন নতুন পদক্ষেপ করছে। টিকাকরণের কাজের গতিও মন্দ নয়। ফলে দু’টি গবেষণার পূর্বাভাস পুরো মিলবে, এমন বিশ্বাস আমার অন্তত নেই।’

আজকের নতুন খবর//রাইয়ান

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *