ড্র সিডনি টেস্ট,ধৈর্য্যের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ রাহানেরা :ক্রীড়া ডেস্ক, নতুন খবর |

 

জস হ্যাজলউডের বলে বোল্ড হয়ে চেতেশ্বর পূজারা সাজঘরে ফিরলে তখনো খেলার প্রায় অর্ধেক দিন বাকি। অনেকে হয়তো ধরেই নিয়েছিল সিরিজে ফের লিড নিচ্ছে স্বাগতিকরাই! কিন্তু হানুমা বিহারী এবং রবীচন্দ্রন অশ্বিন ধৈর্য্যের পরীক্ষায় ত্রুটি করেননি একটুও। আর এরই সুবাদে ড্র হয়েছে সিডনি টেস্ট।

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট ড্র করার পথে ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ। ১৯৯১ সালে এডিলেইডে ম্যাচের শেষ ইনিংসে ৩৩৫ রান নিয়ে ড্র করেছিল ইংল্যান্ড।

এছাড়া ওভারের হিসেবে ভারতের ম্যাচ বাঁচানোর তালিকায় এটি চলে এসেছে চতুর্থ স্থানে। ১৯৭৯-৮০ মৌসুমে পাকিস্তানের বিপক্ষে দিল্লি টেস্টে ১৩১ ওভার ব্যাট করে ম্যাচ ড্র করেছিল তারা। চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ১৫০.৫ ওভার ব্যাটিং করে ম্যাচ ড্র করার রেকর্ড রয়েছে ভারতের। যা তারা করেছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে, ১৯৭৯ সালের ওভাল টেস্টে।

নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩১২ রান করে ইনিংস ঘোষণা করলে সফররত ভারতে জন্য টার্গেট দাঁড়ায় ৪০৭ রান। জয়ের উদ্দেশে খেলেতে নেমে চতুর্থ দিনে ২ উইকেটে ৯২ রান তুলেছিল ভারত। আজ শেষদিনের খেলায় ব্যাট করতে নামেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান আজিঙ্কা রাহানে এবং চেতেশ্বর পূজারা।

দিনের শুরুতেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন অধিনায়ক রাহানে। এরপর চতুর্থ উইকেট পার্টনারশিপে ১৪৮ রান করেন রিসাব পান্ট ও পূজারা। মাত্র ৩ রানের জন্য সেঞ্চুরি পূর্ণ করতে পারেননি ভারতীয় উইকেটকিপার পান্ট। ৯৭ রানে নাথান লায়নের বলে আউট হন তিনি। এরপর ব্যক্তি ৭৭ রানে ফেরেন পূজারা।

ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে দেখে-শুনে খেলতে থামেন হানুমা বিহারী এবং অশ্বিন। দিনের শেষ পর্যন্ত তাদের জুটি ভাঙা সম্ভব না হলে ম্যাচটি ড্র মেনে নিতে বাধ্য হয় অজিরা। অশ্বিন ১২৮ বলে ৩৯ রান করে অপরাজিত থাকেন। আর হানুমা অপরাজিত ছিলেন ১৬১ বলে ২৩ রান করে। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে জস হ্যাজলউড এবং নাথান লায়ন দুটি, আর প্যাট কামিন্স একটি উইকেট নেন।

স্টিভেন স্মিথ ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন।

নতুন খবর//তুম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *