কর্মচারী সমিতির অর্থ ৩০০ কোটিতে দাঁড়ালো , নিজস্ব প্রতিবেদক ,নতুন খবর

বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মচারী সমবায় ঋণদান সমিতির সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৩০০ কোটি টাকায় পৌঁছেছে। মোট এ টাকার মধ্যে ১৫৯ কোটি এসেছে সমিতির সদস্যদের জমা চাঁদার মাধ্যমে। বাকি টাকা এসেছে সমিতির পরিচালিত ব্যবসা, বিতরণ করা ঋণের সুদ ও ব্যাংকে রাখা টাকার সুদ থেকে। জেলা সমবায় অফিসের সর্বশেষ নিরীক্ষা থেকে এ তথ্য উঠে আসে।

জানা গেছে, ২০১৮-১৯ অর্থবছর নাগাদ প্রতিষ্ঠানটির সদস্যদের প্রাপ্ত জমার পরিমাণ ১৫৯ কোটি ২৮ লাখ ১০ হাজার ৫২ টাকা। আর সমিতির মোট সম্পদের পরিমাণ ২৮৫ কোটি ৯০ লাখ ৯৩ হাজার ৬২৮ টাকা। এ অর্থের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির হাতে আছে ৫০ লাখ ৯৬ হাজার ২৫৬ টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকে রক্ষিত ১ কোটি ৯৩ লাখ ১ হাজার ৮৩৪ টাকা।

ব্যাংকে জমা ১৬ কোটি ৯২ লাখ ৪১ হাজার ৫০১ টাকা। মেয়াদি আমানত রয়েছে ১৬০ কোটি ১৬ লাখ ১৭ হাজার ৩৩৬ কোটি টাকা। বিনিয়োগের পরিমাণ ৪৫ কোটি ১৮ লাখ ৩৫ হাজার ৫৫০ টাকা। সদস্যদের মাঝে বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ৩৫ কোটি ৪৭ লাখ ৩০ হাজার ১৪৫ টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা কর্মচারীরা সমিতির সদস্য ও ঋণ গ্রহিতা হলেও খেলাপি ঋণ পিছু ছাড়েনি প্রতিষ্ঠানটির। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী সমিতির কৃঋণ বা খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১ কোটি ৪ লাখ ৯৫ হাজার ৭৮৭ টাকা। সদরঘাট শাখাতে ৪ লাখ ৭ হাজার টাকা তসরুপের ঘটনাও ঘটেছে।

সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি ৩৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা সদস্যদের মাঝে ঋণ বিতরণ করেছে। এ টাকার মধ্যে খেলাপি ঋণের হার ২ শতাংশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদ হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনার জন্য নানামুখি কার্যক্রম হাতে নিলেও নিজের আঙ্গিনার ভেতরে অবস্থিত এই সমবায় প্রতিষ্ঠানটির সুদ হার ১০ শতাংশ।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. রজব আলী নতুন খবরকে বলেন, বর্তমান সুদের হার ১০ শতাংশ হলেও এটা বার্ষিক সাধারণ সভাতে নির্ধারিত হয়। আগামী সভাতে সদস্যরা দাবি করলে এটা কমতে পারে।

নতুন খবর/ এ.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *