নাসার্রী করে স্বাবলম্বী নাঙ্গলকোটের এয়াকুব আলী Reviewed by Momizat on . আজিম উল্যাহ হানিফ : আগে মানুষের বদলা কিংবা কাজ করতাম। এখন লোক রেখে কাজ করাই। মাসে গড়ে ৩০ হাজার টাকার উপরে হাতে আসে। মোটামুটি চলতে পারছি। কথাগুলো ধীরে ধীরে একটান আজিম উল্যাহ হানিফ : আগে মানুষের বদলা কিংবা কাজ করতাম। এখন লোক রেখে কাজ করাই। মাসে গড়ে ৩০ হাজার টাকার উপরে হাতে আসে। মোটামুটি চলতে পারছি। কথাগুলো ধীরে ধীরে একটান Rating:
You Are Here: Home » জেলার খবর » কুমিল্লা » নাসার্রী করে স্বাবলম্বী নাঙ্গলকোটের এয়াকুব আলী

নাসার্রী করে স্বাবলম্বী নাঙ্গলকোটের এয়াকুব আলী

আজিম উল্যাহ হানিফ : আগে মানুষের বদলা কিংবা কাজ করতাম। এখন লোক রেখে কাজ করাই। মাসে গড়ে ৩০ হাজার টাকার উপরে হাতে আসে। মোটামুটি চলতে পারছি। কথাগুলো ধীরে ধীরে একটানে বলে ফেললেন নাঙ্গলকোটের নতুন হরিপুর গ্রামের সফিল্লাহ নাসার্রীর মালিক এয়াকুব আলী। বর্তমানে বয়স ২৭এর কাছাকাছি। এয়াকুব আলী লেখাড়া করেছেন মাত্র ৩য় শ্রেনী পর্যন্ত নাঙ্গলকোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। কোনরকম নাম লিখতে পারলেও পড়তে পারেন না। বাবা সফিউল্লাহ ও মা ছেনোয়ারা বেগমের ৫ ছেলে ১ মেয়ের মধ্যে এয়াকুব আলী মেঝু। পড়াশুনা না করা আর গ্রামে বদলা বা মানুষের গৃহস্থালী কাজ করে সময় কাটতো তার। বছর চারেক আগে পৌরসভার বেতাগাঁও গ্রামের মীর হোসেন হুজুরের পরামর্শ নিয়ে কাজ শুরুর কথা থাকলেও পরের বছর ১০ হাজার টাকা ও বাবার সম্পত্তির মাত্র ৬ শতক জায়গার উপর নাসার্রীর কাজ  সাহস নিয়ে শুরু করেন। নার্সারীর নাম দেন বাবার নামে ‘সফি উল্লাহ নার্সারী’। বর্তমান সময়ে এসে পাশের কয়েকটি জমি ভাড়া নিয়ে নার্সারী সম্প্রসারণ করে বাড়িয়েছেন তিনি। আছে ছোট বড় হরেক রকমের  গাছ ও গাছের চারা। এয়াকুব আলী এই প্রতিবেদক আজিম উল্যাহ হানিফকে জানান- নার্সারীতে ৫ টাকা থেকে ১ হাজার ৫ শত টাকা পর্যন্ত গাছ রয়েছে। এয়াকুব আলী সবর্দা নার্সারীতে কাজ করলেও আরো লোক রেখেছেন ৩ জন। তাদের নাম বেলাল, এহছাক ও শাহাদাত। তাদেরকে দৈনিক ৪ শত টাকা দেন তিনি, খাওয়া ও নাস্তা তো আছেই। সরকারি ও বেসরকারি ভাবে কোন সহযোগিতা তিনি না পেলেও এয়াকুব আলী সহযোগিতা চেয়েছেন। নাঙ্গলকোট পৌরসভার কৃষি অফিসারসহ বেশ কয়েকজন উপজেলা ও ইউনিয়ন কর্মকর্তাও মাঝে মাঝে দেখতে আসেন নার্সারীতে। সুন্দর ও মুগ্ধকর পরিবেশের নার্সারী তারা ঘুরে ঘুরে দেখেন। নার্সারীতে রয়েছে পেয়ারা ৫ জাতের, নারিকেল ৪ জাতের, আমলা ৩ জাতের, আম ১০ জাতের, লিচু ৩ জাতের,  সপেদা গোডা ও কলপ ২ জাতের, লটকন গোডা ও কলব ২ জাতের, তেজপাতা গোডাও কলভ ২জাতের, করণচা ১ জাতের, সরুপা ১ জাতের, আতাফল ১ জাতের, থাই ও দেশী জাম্বুরা ২ জাতের, মাল্টা ২ জাতের, কমলা ২ জাতের, আপেল কূলভরি ২জাতের, আমরুজ ৩ জাতের, জলপাই ১জাতের, চালতা ১ জাতের, এলাচি দেশীও সিলেট্টা ২ জাতের, লেবু ৩ জাতের, কাঁঠাল খাগড়াছড়ির ও দেশী ২ জাতের, লং ধারছেনি কটলেবু ২ জাতের, আরো রয়েছে সেগুন,নিম,অর্জুন, একাশি, বেলজিয়াম, ইকুলেপ্টার, হোপন (ঝাড়–), লম্বু, মেগনি, রেন্ডি, সুপারি, করই,কলা গাছ, আমলকী, অরপই, আশফল, বিলাতী গাব, মেন্দি, ফুল গাছের মধ্যে ও বহু জাতের রয়েছে, তার মধ্যে- কালেরকন্ঠ, পাতাবাহার। তরকারি ও ফসলের মধ্যে রয়েছে সসিন্দা, করলা, ঝিয়া, ডি-কুমড়া, চাল-কুমড়া, মিষ্টি কুমড়া, চিনাল, শিঙ্গিত বেগুন, দেশী পেঁপে, হাইব্রিড পেঁপেঁ, ঝিঙ্গা, মরিচ ইত্যাদি। এয়াকুব আলী বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন । বর্তমানে রয়েছে তার ১ ছেলে ও ১ মেয়ে। অসচ্ছল পরিবার সচ্ছলতায় ফিরায় বারবার মহান প্রভুর নিকট শুকরিয়া আদায় করতে দেখা গেছে তাকে। এয়াকুব আলী গর্ব করে বলেছেন তার দেখা গ্রামের মনিরসহ বেশ কয়েজন নার্সারী দিয়ে স্বাবলম্বী হয়েছে। এতে একটি পরিবার ও সমাজ স্বালম্বী হলে রাষ্ট্রেরই লাভ বলে এয়াকুবের মন্তব্য। নার্সারী থেকে লাকসাম, কুমিল্লা, নিমসার, নোয়াখালীতেও চারা ও গাছ সাপ্লাই হচ্ছে। প্রতি মাসে রয়েছে প্রায় ৩০ হাজার টাকার উপরে আয়।

নতুনখবর/সোআ

Leave a Comment